Sunday, July 3, 2022
বাড়িSliderসজীব ওয়াজেদ জয়- আমার স্বপ্ন ক্যাশলেস সোসাইটি

সজীব ওয়াজেদ জয়- আমার স্বপ্ন ক্যাশলেস সোসাইটি

উত্তরণ ডেস্ক:  ভবিষ্যতে বাংলাদেশ ক্যাশলেস সোসাইটিতে পরিণত হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। তিনি বলেছেন, আমাদের স্বপ্ন হচ্ছে আমরা চলে যাব ক্যাশলেস সোসাইটিতে। তখন দুর্নীতির সুযোগ সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হয়ে যাবে। ক্যাশলেস সোসাইটি গড়ে তোলাই ডিজিটাল বাংলাদেশে আমাদের পরবর্তী লক্ষ্য। তখন সকল ট্রান্সজেকশন হবে ক্যাশলেস।
গত ২৪ আগস্ট রাতে ভার্চুয়াল মাধ্যমে যুক্ত হয়ে প্রবাস থেকে মাত্র ৫ সেকেন্ডে অর্থ পাঠানোর মাধ্যম ‘ব্লেজ’ নামের একটি সেবার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। সোনালী ব্যাংক, হোমপে ও আইটিসিএল-এর যৌথ উদ্যোগে ব্লেজ (Blaze) সার্ভিস যাত্রা শুরু করেছে। সেবাটি সম্পর্কে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ছুটির দিনেও রেমিট্যান্সের এই অর্থ যুক্ত হবে দেশের ব্যাংক অ্যাকাউন্টগুলোতে। সোনালী ব্যাংকসহ দেশের প্রায় ৩৫টি ব্যাংকে এই সেবার মাধ্যমে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স আসবে। সজীব ওয়াজেদ জয় প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে সংযুক্ত থেকে সেবাটির উদ্বোধন করেন।
প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন হচ্ছে মানুষের জীবনকে আরও সহজ এবং উন্নত করা। এর সবচেয়ে বড় লাভ পেয়েছি গত ১৭ মাসে করোনা মহামারির সময়। আমাদের আওয়ামী লীগ সরকারের নজর কিন্তু কেবল আজকের প্রয়োজনের দিকে নয়, দেশের ভবিষ্যতে কী প্রয়োজন হবে সেদিকেও। আমরা সারাক্ষণ ভাবছি, চিন্তা করছি, আমাদের সারাক্ষণের পরিকল্পনা হচ্ছে বাংলাদেশকে আমরা কোথায় নিয়ে যেতে চাই। আজ থেকে ১০ বছর পর বাংলাদেশ কেমন হবে এটাই হচ্ছে আমাদের লক্ষ্য। এটাই হচ্ছে আওয়ামী লীগ সরকারের ভিশন। সেটাই হচ্ছে ডিজিটাল বাংলাদেশের ভিশন।
জয় বলেন, আমরা যখন ক্যাশলেস সোসাইটিতে চলে যাব, দুর্নীতির সুযোগ সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হয়ে যাবে। এখন সরকারি যত ভাতা দেওয়া হয় সেটা কিন্তু সম্পূর্ণ ডিজিটাল পদ্ধতিতে দেওয়া হয়। তাতে আগে যারা গ্রামে এই টাকা বিতরণ করবে, তাদের টাকা চুরি করার সুযোগ থাকত, আমরা সেই সুযোগ বন্ধ করে দিয়েছি। ব্লেজের সেখানেই কিন্তু সবচেয়ে বড় সুবিধা। তিনি বলেন, আমিও একজন প্রবাসী। আমার হয়তো দেশে সেভাবে টাকা পাঠাতে হয় না। তবে দেশের সবচেয়ে বড় আয় হচ্ছে প্রবাসীদের রেমিট্যান্স। গার্মেন্টসের চেয়েও কিন্তু বেশি আয় আসে এ খাত থেকে। বাংলাদেশ ব্যাংক এরই মধ্যে রেমিট্যান্স পাঠানোর পদ্ধতি অনেক উন্নত করেছে। কিন্তু সেখানে টাকা পাঠানোর সময়ে সীমাবদ্ধতা থাকতে পারে। কিন্তু আজকের ডিজিটাল এই যুগে এই লিমিটেশনের কোনো প্রয়োজন নেই। সেজন্যই আজকে ব্লেজ সার্ভিসের উদ্বোধন। ব্লেজের মাধ্যমে দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা ৫ সেকেন্ডের মধ্যে টাকা যোগ হয়ে যাচ্ছে। এই সেবাটির উদ্বোধন করতে পেরে আমি খুবই আনন্দিত।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক এমপি বলেন, করোনাকালে ১১ হাজার দপ্তর পেপারলেস অফিস করেছে। দেড় কোটি ই-ফাইল সম্পাদন করা হয়েছে। করোনকালে আমরা ভার্চুয়াল কোর্টে চলে গিয়েছি। সাড়ে ৩ কোটি মানুষ ভ্যাকসিনের জন্য অনলাইনে নিবন্ধন করেছে। সোনালী ব্যাংকের চেয়ারম্যান জিয়াউল সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গর্ভনর আহমেদ জামাল, সোনালী ব্যাংকের এমডি আতাউর রহমান প্রধানসহ সংশ্লিষ্ট অন্যরা।

আরও পড়ুন
- Advertisment -spot_img

জনপ্রিয় সংবাদ

মন্তব্য