Friday, February 23, 2024
বাড়িউত্তরণ প্রতিবেদনসোনার বাংলাদেশ গড়ে তোলার প্রত্যয়

সোনার বাংলাদেশ গড়ে তোলার প্রত্যয়

উত্তরণ প্রতিবেদন : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতা থেকে যাওয়ার পূর্বে দেশ ও জনগণের জন্য ভালো কিছু করে যাওয়ার আকাক্সক্ষা পুনর্ব্যক্ত করেছেন। গত ২৭ সেপ্টেম্বর সকালে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে মন্ত্রিপরিষদ সদস্যবৃন্দ তাকে ৭৪তম জন্মদিনের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানালে শেখ হাসিনা তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় এই প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকটি ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত হয়। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী এবং সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে মন্ত্রীরা বৈঠকে যোগ দেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাবা-মা সব হারিয়ে রিক্ত, নিঃস্ব হয়ে এই দেশে কাজ করা, এটা খুবই কঠিন। কিন্তু তারপরেও শুধু একটা কথা চিন্তা করেছিÑ যে দেশটাকে এবং দেশের মানুষকে আমার বাবা এত ভালোবেসেছেন তাদের জন্য আমাকে কিছু করে যেতে হবে। তার (জাতির পিতা) স্বপ্নটা যেন অপূর্ণ না থাকে সেটা যেন পূর্ণ করতে পারি।’ শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ যেন বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে চলতে পারে সেটাই জাতির পিতা চেয়েছিলেন, ছোটবেলা থেকেই তার এই আকাক্সক্ষাটা আমরা জানি, শুনেছি। সে-কারণেই আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছিÑ এই দেশটাকে যেন জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলতে পারি।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দেশের মানুষ যেন বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে চলতে পারে ঐটুকুই আমার প্রচেষ্টা আর কিছু না। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সবাইকে আমি ধন্যবাদ জানাচ্ছি, কারণ, সবার সহযোগিতাতেই বাংলাদেশটাকে আমরা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারছি।’ তিনি বলেন, হয়তো এই করোনা ভাইরাসটা না আসলে আমরা আরও অনেক কাজ করতে পারতাম। তারপরেও যত বাধাবিঘœই আসুক সেটা অতিক্রম করার মতো ক্ষমতা বাংলাদেশের মানুষ রাখে। সেজন্য বাংলাদেশের মানুষের প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা জানাই। শেখ হাসিনা তার ৭৪তম জন্মদিনে সবার কাছে দোয়া চেয়ে বলেন, ‘সবার কাছে দোয়া চাই যতদিন বেঁচে আছি যেন সম্মানের সঙ্গে বাঁচতে পারি। আর আমার কাজ দ্বারা বাংলাদেশের মানুষের যেন উপকার হয় এবং মানুষ যেন ভালো থাকে সেই কাজটুকু যেন করতে পারি।’ প্রধানমন্ত্রী এ সময় অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান এবং বলেন, ‘তার জ্ঞান, প্রজ্ঞা ও মেধা রাষ্ট্রের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল। তার মৃত্যু আমাদের তথা রাষ্ট্রের জন্য এক বিরাট ক্ষতি।’
মাহবুবে আলমের কর্মময় জীবনের ওপর আলোকপাত করতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তিনি অত্যন্ত ঠা-া মাথায় এবং ধীরস্থিরভাবে সবকিছু বিবেচনা করতেন। অনেক জটিল মামলার তিনি ভালোভাবে সমাধান করেছিলেন। গত কয়েকটা বছরে অনেক চড়াই-উৎরাই পার হয়ে আমরা এই জায়গাটায় এসেছি। এ সময় বিভিন্ন ঘাত-প্রতিঘাত যথাযথভাবে মোকাবিলা করেই তিনি তার ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করেছেন।’

শেখ হাসিনার জন্মদিনে নানা আয়োজন
দিনব্যাপী নানা আয়োজনে গত ২৮ সেপ্টেম্বর দেশজুড়ে উদযাপিত হয়েছে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন। কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানিয়ে নেতারা বলেছেন, অমানিশার আঁধারে পথ দেখানোর বাতিঘর এবং দুর্যোগ-সংকট মোকাবিলায় তিনিই আমাদের দিশা। তার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে। সব প্রতিকূলতা দূর করে বিশ্ব মানচিত্রে বাংলাদেশকে নতুন আঙ্গিকে উপস্থাপন করেছেন বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনা।
করোনাভাইরাসের কারণে এ বছর দিনটি সীমিত পরিসরে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে উদযাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। তা সত্ত্বেও সর্বত্র সব আয়োজনে নেতাকর্মী ও সর্বস্তরের মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ ছিল চোখে পড়ার মতো। আওয়ামী লীগ বিকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউর দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। শুরুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী ও কর্মমুখর জীবন নিয়ে আলোচনাকালে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি বলেন, নিজ কর্মগুণে দলের থেকেও এখন বেশি জনপ্রিয় শেখ হাসিনা। অমানিশার আঁধারে পথ দেখানোর বাতিঘর। সরকারপ্রধান হয়ে অতি সাধারণ জীবনযাপন তাকে করে তুলেছে অসাধারণ।
জন্মদিনে প্রধানমন্ত্রী দলীয় আনুষ্ঠানিকতা পরিহার করার নির্দেশ দিয়েছিলেনÑ এ তথ্য জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনার উদারতার মাঝে আমরা মহত্ত্ব খুঁজে নিয়েছি। তার প্রতিটি কর্ম ও সিদ্ধান্ত দলের নেতাকর্মীদের জন্য অনুসরণীয় ও অনুকরণীয় বার্তা। তিনিই এদেশের এগিয়ে যাওয়ার অফুরন্ত প্রেরণা। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে মোনাজাত পরিচালনা করেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম মুফতি মিজানুর রহমান। এ সময় দলের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
শেখ হাসিনার জন্মদিনে মহিলা আওয়ামী লীগ রাজধানীর ধানমন্ডির প্রিয়াঙ্কা কমিউনিটি সেন্টারে দুস্থ নারীদের মধ্যে সেলাই মেশিন বিতরণ করে। এতে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি বলেন, শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর রক্ত ও আদর্শের উত্তরাধিকার। তার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের যত অর্জন, তার পেছনে রয়েছে এক পিতা ও তার কন্যার অবদান। মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাফিয়া খাতুনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম কৃকের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন সাবেক মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি। আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ উপকমিটি রাজধানীর আগারগাঁও এসওএস শিশু পল্লীতে শিশুদের মধ্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করে।
ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ বাদ জোহর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল করে। এতে কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক বলেন, শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে আজ বাংলাদেশের ভৌত অবকাঠামোগত উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্যই দেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা পেয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ফিরে এসেছে। সকালে ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির, রাজধানীর মেরুল বাড্ডার আন্তর্জাতিক বৌদ্ধবিহার, তেজগাঁও জকমালা রানীর গির্জা ও মিরপুর ব্যাপ্টিস্ট চার্চে বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন করা হয়।
কৃষক লীগ বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল করে।
যুবলীগ মিলাদ ও দোয়া মাহফিল এবং দৃষ্টি ও বাকপ্রতিবন্ধীদের মধ্যে খাবার ও বস্ত্র বিতরণ এবং প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করে। স্বেচ্ছাসেবক লীগ বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউর কার্যালয়ে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল এবং আলোচনা সভা করে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ৭৪টি বৃক্ষরোপণ করেছে ছাত্রলীগ। এছাড়া ছাত্রলীগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল, পথশিশুদের মধ্যে খাবার বিতরণ এবং জগন্নাথ হল উপাসনালয়ে বিশেষ প্রার্থনা সভা করে। মৎস্যজীবী লীগের মিলাদ ও দোয়া মাহফিল এবং আলোচনা সভা আয়োজন করে। প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনকে কেন্দ্র করে ‘উত্তরণ’ একটি সমৃদ্ধ স্মারক সংখ্যা প্রকাশ করেছে।

আরও পড়ুন
spot_img

জনপ্রিয় সংবাদ

মন্তব্য