Saturday, July 13, 2024
বাড়িSliderবিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের ভূমিকা অভূতপূর্ব

বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের ভূমিকা অভূতপূর্ব

বাংলাদেশ আজকে সারাবিশ্বের শান্তি রক্ষায় অভূতপূর্ব ভূমিকা রেখে যাচ্ছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে আমরা এক নম্বর দেশ হিসেবে সারাবিশ্বের শান্তি রক্ষা করে যাচ্ছি।

উত্তরণ প্রতিবেদন: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে শুধুমাত্র শান্তিপূর্ণ ও গণতান্ত্রিক পরিবেশ অব্যাহত থাকায় বাংলাদেশ আর্থ-সামাজিকভাবে উন্নতি করতে সক্ষম হয়েছে মন্তব্য করে বলেছেন, ‘আমরা আর অশান্তি চাই না, সংঘাত চাই না। আমরা চাই মানুষের উন্নতি। আজকের বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পেছনে রয়েছে অব্যাহত শান্তিপূর্ণ পরিবেশ। কাজেই একটা শান্তিপূর্ণ, স্থিতিশীল পরিবেশ মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জনে সহায়ক। সেই কথাটা সব সময় আমাদের মনে রাখতে হবে।’
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘জুলিও কুরি’ শান্তি পদক প্রাপ্তির সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে গত ২৮ মে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শান্তি পুরস্কার পেয়েছেন, শান্তির বাণী শুনিয়েছেন; কিন্তু নিজেকে জীবন দিতে হয়েছে। আমরা আর চাই না অশান্তি, সংঘাত। আমরা চাই মানুষের জীবনের উন্নতি। সেই কামনাই আমরা সব সময় করি।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘১৯৭৫ সালে জাতির পিতাকে হত্যার পর অশান্ত পরিবেশ, প্রতি রাতে কার্ফু। দীর্ঘ ২১ বছর পর আমরা ১৯৯৬ সালে এসেছিলাম সরকারে তখন কিছু উন্নতি করতে সক্ষম হয়েছিলাম। অন্তত আমরা এইটুকু বলতে পারি। ভিত্তিটা তৈরি করে দিয়েছিলাম।’ তিনি বলেন, ‘মাঝখানে আবার একটা অশান্ত পরিবেশ। এরপর ২০০৮ সালের নির্বাচনের পর থেকে এ পর্যন্ত বাংলাদেশে একটা শান্তিপূর্ণ, গণতান্ত্রিক পরিবেশ বিরাজমান বলেই আজকে বাংলাদেশ আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন করতে সক্ষম হয়েছে।’
অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন এবং মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও গবেষক মোনায়েম সরকার। মূল বক্তব্যের ওপর আলোচনায় অংশ নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, সাবেক মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী ও বিশিষ্ট লেখক আনোয়ারা সৈয়দ হক। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন বাংলাদেশ শান্তি পরিষদের সভাপতি মোজাফ্ফর হোসেন পল্টু।
শুরুতে বঙ্গবন্ধু ও তার জুলিও কুরি শান্তি পদক প্রাপ্তির ওপর একটি ভিডিও ডকুমেন্টারি প্রদর্শিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে জুলিও কুরি শান্তি পদক প্রদানের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে স্মারক ডাকটিকিট ও প্রথম দিনের কভার উন্মোচন করেন। তিনি দিবসটি উপলক্ষে একটি স্যুভেনির প্রকাশনার প্রচ্ছদও উন্মোচন করেন।
উল্লেখ্য, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সালের ২৩ মে বিশ্ব শান্তি পরিষদ কর্তৃক জুলিও কুরি শান্তি পুরস্কারে ভূষিত হন। ফিদেল কাস্ত্রো, হো চি মিন, ইয়াসির আরাফাত, সালভাদর আলেন্দে, নেলসন ম্যান্ডেলা, ইন্দিরা গান্ধী, মাদার তেরেসা, কবি ও রাজনীতিবিদ পাবলো নেরুদা, জওহরলাল নেহেরু, মার্টিন লুথার কিং এবং লিওনিদ ব্রেজনেভের মতো বিশ্বনেতারা এই পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। বিশ্ব শান্তি পরিষদের শান্তি পুরস্কারটি ছিল বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদানের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি। জুলিও কুরি শান্তি পুরস্কার ছিল বাংলাদেশের জন্য প্রথম আন্তর্জাতিক পুরস্কার। এই মহান অর্জনের ফলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু থেকে বিশ্ববন্ধুতে পরিণত হন।
বিশ্ব শান্তির সংগ্রামে বিশ্বখ্যাত বিজ্ঞানী মেরি কুরি এবং পিয়েরে কুরির অবদানকে স্মরণ করতে বিশ্ব শান্তি পরিষদ ফ্যাসিবাদ, সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে মানবিক কল্যাণ ও শান্তি প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ে অসামান্য অবদানের জন্য ১৯৫০ সাল থেকে বিশিষ্ট ব্যক্তি ও সংস্থাকে জুলিও কুরি শান্তি পুরস্কার দিয়ে আসছে।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘২০০৮ সালের পর থেকে আওয়ামী লীগ সরকার পরিকল্পিতভাবে উন্নয়ন করেছে বলেই আমরা দারিদ্র্যের হার কমাতে পেরেছি, সাক্ষরতার হার বাড়াতে পেরেছি, মানুষের আয়ুষ্কাল বাড়াতে পেরেছি, মাতৃমৃত্যু হার কমাতে পেরেছি। মানুষ এখন আর ভিক্ষা করে চলবে না। নিজের মর্যাদা নিয়েই চলবে, সেটাই আমাদের লক্ষ্য।’ তিনি বলেন, ‘আমরা উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছি। ইনশাল্লাহ্ বাংলাদেশকে আমরা উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তুলব। সেই পরিকল্পনাও আমরা নিয়েছি ২০৪১ সালের মধ্যে। ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার পথে আমরা যথেষ্ট অগ্রগামী। এই অভিযাত্রা আমাদের অব্যাহত থাকবে।’
গত সাড়ে ১৪ বছরের বিভিন্ন ক্ষেত্রে সরকারের সফলতার কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘সরকার ২০০৮ সালের ভোটে নির্বাচিত হওয়ার পর পরিকল্পিতভাবে দেশের মানুষের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশে দারিদ্র্যের হার ৪১ শতাংশ ছিল, আজকে আমরা তা ১৮ দশমিক ৭ ভাগে নামিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি। যেখানে আমাদের হতদরিদ্র ছিল ২৫ দশমিক ৯ ভাগ। সেটা এখন আমরা ৫ দশমিক ৬ ভাগে নামিয়ে এনেছি। ইনশাল্লাহ্ এদেশে কোনো মানুষ হতদরিদ্র থাকবে না, গৃহহীন থাকবে না, ভূমিহীন থাকবে না।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘প্রতিটি মানুষ অন্তত তাদের মৌলিক অধিকার পাবে, অন্ন, বস্ত্র, শিক্ষা, চিকিৎসা, বাসস্থান এটা জাতির পিতার লক্ষ্য সেই লক্ষ্য আমরা বাস্তবায়ন করে যাব। আমরা সেই লক্ষ্য নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি।’ প্রতিনিয়ত স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করতে হচ্ছে মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি জানি যারা জাতির পিতাকে হত্যা করেছে, যারা আমাদের স্বাধীনতা চায়নি, প্রতিনিয়ত তাদের প্রতিবন্ধকতা আমাদের অতিক্রম করতে হয়।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, জনগণই শক্তি, জনগণই ক্ষমতার উৎস। আমি সেই বিশ্বাসে বিশ্বাসী। সেই বিশ্বাস নিয়েই আমার পথ চলা। জাতির পিতা শান্তিতে বিশ্বাস করতেন। কী দুর্ভাগ্য যিনি শান্তির কথা বলে গেছেন তাকেই জীবনটা দিতে হলো যে দেশের মানুষকে তিনি গভীরভাবে ভালোবেসেছিলেন সেই মানুষের মধ্যে কিছু অমানুষের হাতে।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দেশে বিরাজমান টেকসই ও শান্তিপূর্ণ গণতান্ত্রিক পরিবেশই বাংলাদেশের অভূতপূর্ব আর্থ-সামাজিক অগ্রগতির অন্যতম কারণ। একটি শান্তিপূর্ণ টেকসই পরিবেশ জনগণের অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জনে সহায়ক এবং সকলকে এটি মনে রাখতে হবে।’ প্রধানমন্ত্রী আলোচনার মাধ্যমে সব বিরোধ নিষ্পত্তির ওপর গুরুত্বারোপ করেন। বাংলাদেশ যে কাজটি ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে করেছে।
তিনি বলেন, ‘এখন কেন এই অস্ত্র প্রতিযোগিতা (চলছে), অস্ত্র প্রতিযোগিতার জন্য যে অর্থ ব্যবহার করা হচ্ছে তা ক্ষুধার্ত শিশু ও মানুষের জন্য ব্যবহার করা হবে না কেন? এই অস্ত্র প্রতিযোগিতার জন্য হাজার হাজার শিশু ও নারী বিশ্বজুড়ে অমানবিক জীবনযাপন করছে।’ এ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা উল্লেখ করেন, ‘বাংলাদেশ ১০ লাখের বেশি জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিক রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছে, যারা নিপীড়নের মুখোমুখি হয়েছিল, যা তাকে ১৯৭১ সালের পরিস্থিতি স্মরণ করিয়ে দেয়।’ তিনি বলেন, ‘আমরা চাই পৃথিবীতে শান্তি ফিরে আসুক, (পৃথিবীতে) কোনো ধরনের অশান্তি থাকবে না।’
বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের ভূমিকা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ আজকে সারাবিশ্বের শান্তি রক্ষায় অভূতপূর্ব ভূমিকা রেখে যাচ্ছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে আমরা এক নম্বর দেশ হিসেবে সারাবিশ্বের শান্তি রক্ষা করে যাচ্ছি।’ তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ, সব সময় আমরা শান্তিতে বিশ্বাস করি। আমরা দেশকে অর্থনৈতিকভাবে উন্নত করতে চাই।’
আগামীতে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শান্তি পুরস্কার’ দেওয়ার ঘোষণা দিতে তার কন্যা শেখ হাসিনা বলেন, ‘এটা আমরা দেওয়ার ব্যবস্থা নেব। এইটুকু আমরা বলতে চাই। আমরা শান্তি চাই। শান্তির পথেই আমরা এগিয়ে যাব। বঙ্গবন্ধু আজ আর আমাদের মধ্যে নেই, তবে আমরা চাই যে তার দেশ উন্নত এবং সমৃদ্ধ হিসেবে গড়ে উঠুক।’
প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘তৎকালীন শান্তি পরিষদের মহাসচিব বলেছিলেন, শেখ মুজিব কেবল বঙ্গবন্ধু নন, তিনি বিশ্ববন্ধু। মাত্র ৯ মাসে তিনি সংবিধান উপহার দেন। যাতে শান্তির কথা ও দেশের মানুষের মৌলিক অধিকারের কথা ছিল। তিনি পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের ওপর গুরুত্বারোপ করেছিলেন।’
জাতির পিতার কর্মময় জীবনের স্মৃতিচারণ করে সরকারপ্রধান বলেন, ‘ছাত্র-জীবন থেকে বঙ্গবন্ধু নির্যাতিত মানুষের পাশে ছিলেন, সেই ১৯৪৩ সালের দুর্ভিক্ষে ছাত্র শেখ মুজিব মানুষের পাশে ছিলেন। ’৪৫ সালের দাঙ্গার সময় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শেখ মুজিব দাঙ্গায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন। সব সময় তিনি শান্তির পথে ছিলেন। শান্তির কথা তিনি বলে গেছেন।’
জাতির পিতার পররাষ্ট্রনীতির কথা তুলে ধরে তার কন্যা শেখ হাসিনা বলেন, ‘জাতির পিতার পররাষ্ট্রনীতি আমরা আজও মেনে চলি। মেনে চলতে চাই। জাতির পিতা সব সময় মানুষের কল্যাণে নিজের জীবনকে উৎসর্গ করেছেন। বঙ্গবন্ধু শান্তিতে বিশ্বাস করতেন। জাতিসংঘে বাংলায় ভাষণ দেওয়ার সময়ও তিনি শান্তির কথা বলেছিলেন। যিনি সর্বদা শান্তির কথা বলে গেছেন, তাকেই জীবন দিতে হলো। প্রতিনিয়ত স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রতিকূলতা অতিক্রম করতে হচ্ছে।’

আরও পড়ুন
spot_img

জনপ্রিয় সংবাদ

মন্তব্য