Saturday, July 13, 2024

বিজয় শোভাযাত্রায় নেতাকর্মীদের ঢল

উত্তরণ প্রতিবেদন: রাজধানীতে আওয়ামী লীগের বর্ণাঢ্য বিজয় শোভাযাত্রায় মানুষের ঢল নামে। মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে গত ১৯ ডিসেম্বর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের সামনে থেকে আওয়ামী লীগের বিজয় শোভাযাত্রা শুরু হয়। সমাবেশ শেষে বিজয় শোভাযাত্রাটি শাহবাগ, এলিফ্যান্ট রোড, সায়েন্স ল্যাব, কলাবাগান হয়ে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে গিয়ে শেষ হয়। শোভাযাত্রায় লাখো মানুষের ঢল নামে। বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী যোগ দেন এই শোভাযাত্রায়। এই বিজয় শোভাযাত্রায় আগুন-সন্ত্রাসীসহ দেশবিরোধী সব অপশক্তি, অগণতান্ত্রিক চক্রান্ত ও সাম্প্রদায়িক শক্তির ষড়যন্ত্র রাজনৈতিকভাবে রুখে দেওয়ার শপথ গ্রহণ করা হয়। একইসঙ্গে তারা বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নত-সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ে তোলার শপথ গ্রহণ করেন।
ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটের সামনে ট্রাকের ওপর স্থাপিত মঞ্চে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন নেতারা। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি তেজগাঁওয়ে ট্রেনে আগুনে চারজন নিহত হওয়ার বিষয়টিকে গাজায় নারী ও শিশু-হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে তুলনা করে বলেন, যারা রেলে আগুন দিয়ে মানুষ হত্যা করেছে, তাদের ক্ষমা নেই। তিনি বলেন, আগামী ৭ জানুয়ারি ফাইনাল খেলা হবে। ঐ দিন ১ হাজার ৮৯৬ জন খেলবেন। আর বিএনপি গত ২৮ অক্টোবর লালকার্ড খেয়ে এই খেলা থেকে বিদায় নিয়েছে। তিনি বলেন, ‘খেলা হবে। ছাড়াছাড়ি নেই। খেলা চলবে। ৭ জানুয়ারি ফাইনাল খেলা হবে। বিএনপি নেই! এক-দফা ভুয়া। বিএনপি ভুয়া। ২৮-দফা ভুয়া। ২৮ তারিখ ভুয়া। চাপে পড়ে গেছে। ফাইনাল খেলবে কে? ১ হাজার ৮৯৬ জনের প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচনে দল আছে ২৭টা।’ নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে না যারা বলে, তারা ভুয়া বলেও মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, ‘বিএনপি ভুয়া। ধানের শীষ ভুয়া। বিএনপির নেতা নেই। আন্দোলন করবে কাকে দিয়ে? নির্বাচন করবে কাকে দিয়ে?’ তিনি বলেন, খেলার মাঠ বাংলাদেশ। খেলা হবে হাওয়া ভবনের বিরুদ্ধে, দুর্নীতির বিরুদ্ধে। খেলা হবে আগুন-সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে।
ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি দাবি করছে, তাদের ২১ হাজার নেতাকর্মী না-কি জেলে আছে। চ্যালেঞ্জ করছি, জেলে আছে ১১ জন। ১৯ ডিসেম্বর জামিন পেয়েছে ২ হাজার জন। ২১ হাজার ভুয়া, বিএনপিও ভুয়া।’ বিএনপির চলমান সরকারবিরোধী আন্দোলনের কঠোর সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, অন্ধকার থেকে বত্তৃতা করে। ছবি তোলে। কুয়াশার মধ্যে ১০-১২ জন মিছিল করে। এটা না-কি আন্দোলন! বিএনপির আন্দোলন নিয়ে ব্যঙ্গ করে ক্ষমতাসীন দলের এই নেতা আরও বলেন, বিএনপি এ-বছর আর আন্দোলন করবে না। আগামী বছর শুরু হবে। রমজানের ঈদের পর আন্দোলন হবে। কোরবানির ঈদের পর আন্দোলন হবে। এরপর আবার পাঁচ বছর পর আন্দোলন করবে! বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে নিয়ে তিনি বলেন, ‘জেলে যেতে ভয় পায়। ভুয়া। তারেকের কথায় আর আন্দোলন হবে না।’ ওবায়দুল কাদের দাবি করেন, বিদেশি সমীক্ষা বলছে, ৭০ শতাংশ লোক শেখ হাসিনাকে ভোট দেওয়ার জন্য উন্মুখ হয়ে আছে। যারা ভোটকেন্দ্রে আসতে বাধা দেবে, তাদের মনে রাখতে হবে, জনগণ নির্বাচনমুখী, তারাই প্রতিহত করবে।

পূর্ববর্তী নিবন্ধভোট কেন্দ্রে আসুন, নৌকায় ভোট দিন
পরবর্তী নিবন্ধভোট-উৎসবে তারকারা
আরও পড়ুন
spot_img

জনপ্রিয় সংবাদ

মন্তব্য