Sunday, July 3, 2022
বাড়িক্রীড়াবঙ্গবন্ধু কাপ আন্তর্জাতিক কাবাডি লাল-সবুজের আরেকটি বিজয় মুকুট

বঙ্গবন্ধু কাপ আন্তর্জাতিক কাবাডি লাল-সবুজের আরেকটি বিজয় মুকুট

অনিন্দ্য আরিফ দিব্য

স্বাধীনতার মাসে কাবাডির হাত ধরে এসেছে আরেকটি বিজয় মুকুট। দ্বিতীয় বঙ্গবন্ধু কাপ আন্তর্জাতিক কাবাডিতে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ। আট দলের এই আসর শুরু হয়েছিল ১৯ মার্চ। শেষ হয়েছে ২৪ মার্চ। অর্থাৎ ঠিক তার দুদিন পর ছিল স্বাধীনতা দিবস। এমন দিনে অর্জিত সাফল্য বাংলাদেশের কাবাডির জন্য নতুন বারতা নিয়ে এসেছে। আসরে বিশ্ব কাবাডির র‌্যাংকিংয়ে পঞ্চমে থাকা বাংলাদেশের সঙ্গে শ্রীলংকা (৬), কেনিয়া (৭), নেপাল (৮), ইন্দোনেশিয়া (১০), ইরাক (১১), মালয়েশিয়া (১৪) ও ইংল্যান্ড (১৫) অংশ নিয়েছে।
দারুণ এক ফাইনাল দেখে দর্শকরা মুগ্ধ। ফাইনাল লড়াই পেন্ডুলামে ঝুলছিল। একবার বাংলাদেশ এগিয়ে যায় তো আবার কেনিয়া। তবে শেষ হাসি হেসেছে বাংলাদেশই। তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতার পর কেনিয়াকে হারিয়েছে ৩৪-৩১ স্কোরে। শহীদ নূর হোসেন ভলিবল মাঠে নিজেদের তুহিন তরফদার-আরদুজ্জামানরা টানা দ্বিতীয়বারের মতো ট্রফি জিতেছে। প্রথমার্ধে বাংলাদেশ ১৭-১৪ পয়েন্ট এগিয়ে ছিল। এর মধ্যে একটি লোনা ছিল। বাংলাদেশ গ্রুপ পর্বে শ্রীলংকা, মালয়েশিয়া ও ইংল্যান্ডকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিফাইনালে ওঠে এবং সেমিফাইনালে ইরাককে পরাজিত করে ফাইনালে উঠেছিল। গতবারও ফাইনালে কেনিয়াকে হারিয়েছিল লাল-সবুজের দামাল ছেলেরা।
অগ্নিঝরা স্বাধীনতা মাসে জমজমাট আয়োজনে খেলার শেষ বাঁশি বাজতেই মুখরিত হয়ে উঠল সারা স্টেডিয়াম ‘জয় বাংলা, বাংলার জয়’ সেøাগানে। আর লাল-সবুজ পতাকা হাতে নিয়ে কাবাডি ম্যাটের চারপাশে ল্যাপ অব অনার নিয়ে ঘুরে বেড়ান তুহিন-আরদুজ্জামানরা। আনন্দে-আত্মহারা খেলোয়াড়রা একে অন্যকে জড়িয়ে ধরেছেন। গ্যালারিতে থাকা দর্শকরাও চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশকে অভিবাদন জানাচ্ছেন। কর্মকর্তারাও ফেটে পড়ছেন বিপুল উল্লাসে।
কাবাডি জাতীয় খেলা হলেও বাংলাদেশ দীর্ঘদিন নিজেদের মেলে ধরতে পারছে না আন্তর্জাতিক পরিম-লে। হিসাবটা এমনÑ ১৯৯০, ১৯৯৪ ও ২০০২ এশিয়ান গেমসে দ্বিতীয় হয়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু ২০০৬ সালে ব্রোঞ্জ জয়ের পর এশিয়াডে পুরুষ বিভাগে আর পদক আসেনি। ২০১০ থেকে এশিয়াডে পদকশূন্য। সর্বশেষ ২০১৯ সালে দক্ষিণ এশিয়ান গেমসে টেনেটুনে এসেছে ব্রোঞ্জ। ফাইনাল শেষে প্রধান অতিথি হিসেবে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করেছেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি।
বাংলাদেশ দলের ভারতীয় কোচ সাজু রাম বলেছেন, ‘গতবার পাঁচ দল খেলেছে, এবার ৮টি। কেনিয়া আগের চেয়ে শক্তিশালী দল নিয়ে এসেছে। শিরোপা ধরে রাখতে পেরে আমরা খুশি। আসরে সিনিয়র খেলোয়াড়দের পাশাপাশি তরুণরাও এবার মন জয় করা পারফরম্যান্স উপহার দিয়েছে। বঙ্গবন্ধু কাপ মিশন শেষ হয়েছে। এবার আমাদের লক্ষ্য এশিয়ান গেমস।’

পূর্ববর্তী নিবন্ধবিজয়ের ৬ দিনের গল্প
পরবর্তী নিবন্ধচলবে এবার মেট্রোরেল
আরও পড়ুন
- Advertisment -spot_img

জনপ্রিয় সংবাদ

মন্তব্য