Friday, February 23, 2024
বাড়িSliderগ্রাম-নগরের বিচিত্র সংবাদ

গ্রাম-নগরের বিচিত্র সংবাদ

পঞ্চগড় থেকে দৃশ্যমান নীল আকাশ ছোঁয়া হিমালয় দার্জিলিং ও কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখার জন্য প্রতিনিয়ত ভিড় জমাচ্ছে স্থানীয়রা এবং বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা পর্যটকরা। অক্টোবরের মাঝামাঝি থেকে নভেম্বর মাসজুড়ে এই সৌন্দর্য উপভোগ করা যায়।

কাঞ্চনজঙ্ঘার চূড়া দেখা যাচ্ছে পঞ্চগড়ে থেকে
বাংলাদেশের উত্তরের সীমান্ত জেলা হিমালয় কন্যা পঞ্চগড়। আর এই হেমন্তজুড়ে এখান থেকে খুব স্পষ্ট করে দেখা যায় মনোমুগ্ধকর কাঞ্চনজঙ্ঘার চূড়া। আর এই নান্দনিক গিরি-সৌন্দর্যের সঙ্গে বেড়ে যায় তেঁতুলিয়া উপজেলা ও পঞ্চগড় জেলার নিজস্ব ঐতিহাসিক স্থাপত্য আর প্রাকৃতিক নদী মহানন্দা, সবজি গ্রাম, পাথর ও চা-শিল্প সৌন্দর্যের নিলা। প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য উপভোগ করতে এ সময় পর্যটকের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ করা যায় এখানে। পাশাপাশি দেখা যাচ্ছে দার্জিলিংয়ের সৌন্দর্যও। ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের দার্জিলিং জেলার একটি বাণিজ্যিক এবং পর্যটন নগরী। হিমালয় পর্বতমালার পর্বতশৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্ট ও কে-টুর পরের অবস্থানে রয়েছে অনুপম সৌন্দর্যের কাঞ্চনজঙ্ঘা।
পঞ্চগড় থেকে দৃশ্যমান নীল আকাশ ছোঁয়া হিমালয় দার্জিলিং ও কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখার জন্য প্রতিনিয়ত ভিড় জমাচ্ছে স্থানীয়রা এবং বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা পর্যটকরা। অক্টোবরের মাঝামাঝি থেকে নভেম্বর মাসজুড়ে এই সৌন্দর্য উপভোগ করা যায়।

ফেসবুক প্রেমে ৮০ লাখ টাকা খোয়ালেন প্রেমিক
এই প্রেমের গল্পের নায়িকা পুষ্পা! যেখানে ফেসবুকে পুষ্পার প্রেমে দেওয়ানা হয়ে প্রেমিক হয়েছেন সর্বশান্ত। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পুষ্পার সঙ্গে পরিচয় হয় এক যুবকের। পুষ্পার আরও কিছু নাম আছে। কখনও পুষ্পা আক্তার। কখনও আবার আবিরা জাহান কলি। ভিন্ন ভিন্ন নামে ভিন্ন ভিন্ন প্রেমিকের সঙ্গে যোগাযোগ গড়ে তোলেন তিনি। দ্রুত পুষ্পার সঙ্গে প্রেমে জড়িয়ে পড়েন যুবক। সেই প্রেমকে পরিণতি দিতে বিয়ের ওয়াদা করেন পুষ্পা। বিয়ের লোভ দেখিয়ে পুষ্পার আবদার বাড়তে থাকে। এক পর্যায়ে চলতে থাকে আর্থিক লেনদেন। নানা ধরনের অজুহাত দেখিয়ে হাতিয়ে নেন ৮০ লাখ টাকা। তারপর বন্ধ করে দেন যোগাযোগ। ধীরে ধীরে ধরাছোঁয়ার বাইরে চলে যান প্রেমিকা পুষ্পা। এমন প্রতারণার শিকার হয়ে গত ১৭ সেপ্টেম্বর ঢাকার তেজগাঁও থানায় মামলা করেন ভুক্তভোগী যুবক।
ডিবির উত্তর বিভাগের ওয়েববেইজড ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন টিমের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মো. আশরাফউল্লাহ গণমাধ্যমকে বলেন, গত ২০ অক্টোবর প্রযুক্তির সহায়তায় টাঙ্গাইল সদর থেকে পুষ্পাকে ও টাঙ্গাইলের ভুয়াপুর থেকে চক্রের হোতা সুজনকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি বলেন, পুষ্পা ও সুজন ফেসবুকে ভুয়া আইডি খুলে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে মানুষের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়ে যোগাযোগ বন্ধ করে দিত।

‘সাপ আতঙ্কে’ নবজাতককে ডোবায় ফেললেন মা
নরসিংদীর পলাশে ২৪ দিনের এক নবজাতক সন্তানকে ‘সাপ আতঙ্কে’ ডোবায় ফেলে দিয়েছেন তার মা। এ ঘটনায় শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। গত ১৮ অক্টোবর সকালে জেলার পলাশ উপজেলার ডাঙ্গা ইউনিয়নের কেন্দুয়াব গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত নবজাতকের নাম ইউসুফ মিয়া। সে কেন্দুয়াব গ্রামের মহসিন মিয়ার ছেলে।
পুলিশ ও নিহতের পরিবার সূত্র জানায়, তানিয়া বেগম গর্ভধারণের পর থেকে পেটে সাপ রয়েছে বলে আতঙ্কে থাকতেন। পরে গর্ভধারণের সাত মাসের মাথায় আল্ট্রাসনোগ্রাম করে ছেলে সন্তানের কথা জানেন। তারপরেও সাপ আতঙ্ক কাটেনি। ২৪ দিন আগে একটি হাসপাতালে তানিয়া পুত্র সন্তান জন্ম দেন। এরপরও তিনি আতঙ্কিত থাকতেন। ১৮ অক্টোবর সকালে আতঙ্কিত হয়ে নিজের সন্তানকে বাড়ির পাশে একটি ডোবায় ফেলে দেন। পরে বাড়িতে এসে স্বজনদের বলেন, সাপ ফেলে দিয়ে এসেছি। স্বজনরা ডোবা থেকে নবজাতককে উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পর পুলিশ নবজাতকের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। একই সঙ্গে নবজাতকের মা তানিয়া বেগমকে (২২) গ্রেফতার করে। তিনি মানসিকভাবে অসুস্থ বলে ধারণা করা হচ্ছে।

প্রতিদিন আধা লিটার দুধ দিচ্ছে পাঁঠা!
প্রতিদিন আধা লিটার করে দুধ দিচ্ছে একটি পাঁঠা। বিষয়টি জানাজানি হলে, তা দেখতে মালিকের বাড়িতে ভিড় করছে মানুষ। অবিশ্বাস্য মনে হলেও বাস্তবেই এমন একটি পাঁঠার সন্ধান পাওয়া গেছে গাইবান্ধা সদর উপজেলার সাহাপাড়া ইউনিয়নের চকচকা গ্রামে। সরেজমিনে দেখা যায়, পাঁঠাটির মালিক গরু ব্যবসায়ী মোনারুল ইসলাম বাড়ির পাশের একটি বাগানে গাছের সাথে সেটিকে বেঁধে রেখেছেন। আর তা দেখতে ভিড় করছে মানুষ। উপস্থিত জনতার সামনে পাঁঠার মালিক বাট থেকে প্রায় আধা লিটার দুধ দোহন করেও দেখান। এ বিষয়ে পাঁঠার মালিক গরু ব্যবসায়ী মোনারুল ইসলাম বলেন, ব্যবসার কাজে একবার চট্টগ্রামের পাহাড়তলীতে গিয়েছিলাম। সেখানে পথের ধারে এক বৃদ্ধার কাছে পাঁঠাটিকে দেখতে পাই। পরে ৩৫ হাজার টাকা দিয়ে সেটিকে কিনে বাড়িতে আনি।
গাইবান্ধা জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মাসুদার রহমান বলেন, পাঁঠা দুধ দেয় বিষয়টি অবিশ্বাস্য হলেও সত্য। ছাগলটির একটি নয়, লম্বা আকৃতির দুটি ওলান আছে। পেছনে আলাদা দুটি টেস্টিস আছে। মলদ্বার আছে কিন্তু দেহের বাহিরে আলাদা অন্য কোনো যৌনাঙ্গ নেই। ছাগলটি দৈনিক আধা লিটারের মত দুধ দেয় ঘটনাটি অবিশ্বাস্য হলেও সত্য।

৪৭ বছর পর দেখা হচ্ছে ৬ বান্ধবীর
‘বাংলাদেশের দুষ্প্রাপ্য ছবি সমগ্র’ সংগঠনের উদ্যোগে ৪৭ বছর পর খুঁজে পাওয়া গেল ছয় বান্ধবীকে। গত ২৭ জুলাই রাজধানীর একটি রেস্তোরাঁয় দেখা হয় তাদের। জানা যায়, সংগঠনটির বিপুল সদস্য সংখ্যা থাকা অনলাইন গ্রুপের মাধ্যমে এক রাতের ভেতর চারজনকে খুঁজে বের করেন, এরপর গত ২৬ জুলাই আরও একজনের খোঁজ পেয়েছেন তারা। মোট সাতজনের ছয়জনকে পাওয়া গেছে তাদের ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে।
‘বাংলাদেশের দুষ্প্রাপ্য ছবি সমগ্র’ প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক গিরিধর দে জানান, খুঁজে পাওয়ার সম্বল বলতে ছিলও একটি ছবি মাত্র। তাও ১৯৭৫ সালের। শেরেবাংলা বালিকা মহাবিদ্যালয় (নারী শিক্ষা মন্দির)-এর বিদায় সংবর্ধনাতে তোলা। এরপর পেরিয়ে গেছে ৪৭ বছর। কারও সঙ্গে কারও যোগাযোগ নেই। কেউ কারও খবরও জানেন না। তবে তারা ঠিকই একে-অপরের অন্তরে মিশে ছিলেন। কয়েকদিন পূর্বে অসুস্থ দিলখোশ বেগম পুতুল (সাত বান্ধবীর একজন) মেয়ে প্রত্যাশার কাছে স্মৃতি হয়ে থাকা সাত বান্ধবীর স্কুল-জীবনের ছবিটি দেখিয়ে স্কুল-জীবনের পর হারিয়ে ফেলা বান্ধবীদের নিয়ে স্মৃতিচারণ করছিলেন এবং বলছিলেনÑ যদি কোনোভাবে তাদের ফিরে পেতাম! এরপর মেয়ে তার মাকে জানালেন ‘বাংলাদেশের দুষ্প্রাপ্য ছবি সমগ্র’-এর কথা। তারা এলেন, প্রচার শুরু হলোও।
অবশেষে ‘বাংলাদেশের দুষ্প্রাপ্য ছবি সমগ্র’-এর মাধ্যমে রাত পেরিয়ে সকাল হতে-হতেই আমরা চারজনকে খুঁজে পেলাম। সর্বপ্রথম যাকে পাওয়া গেল তিনি ঝুমা আবদুল্লাহ। জানা গেল, তিনি সেদিনই হজ করে দেশে ফিরেছেন। এরপর একে-একে সাবেরা বেগম, হাওয়া, রোওশন আরা নিলুকেও পেলাম। ২৬ জুলাই সর্বশেষ রুবিকেও পেলাম। তাদের একে অন্যের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ হয়েছে।

বাচ্চা প্রসব না করেই দুধ দিচ্ছে গাভি
সাড়ে তিন বছর বয়সী বকনা গরু কখনও বাচ্চা প্রসব না করলেও দুই মাস ধরে ৬ লিটার করে দুধ দিয়ে যাচ্ছে। প্রথম অবস্থায় সন্দেহ থাকলেও আথালের অন্য গাভির বাছুর ওলান থেকে দুধ খেয়ে নিলে পরবর্তীতে দুধ সংগ্রহ শুরু করেন গরুর মালিক সিরাজুল হক মৃধা। খেয়ে দেখেন দুধের স্বাদ ও পুষ্টি একই রয়েছে। গরুর দুধ দেওয়ার দৃশ্য দেখতে প্রতিদিন ভিড় করছেন এলাকার কৌতূহলি লোকজন। ঘটনাটি ঘটেছে বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার কেদারপুর ইউনিয়নের পূর্ব ভূতেরদিয়া গ্রামের সিরাজুল হক মৃধার বাড়িতে।
বরিশাল জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. নূরুল আলম বলেন, হরমোনের পরিবর্তনের কারণে বাচ্চা প্রসব ছাড়াই দুধ দিতে পারে গাভি। তবে এ ঘটনা খুবই বিরল। সাধারণত কয়েক লাখে এমন ঘটনা ঘটে। এই দুধ পান করার ক্ষেত্রে কোনোরকম সমস্যা নেই। এই দুধ খুব পুষ্টিকর ও সুস্বাদু।

গ্রন্থনা : শেখ মো. ফারুক শাহ

আরও পড়ুন
spot_img

জনপ্রিয় সংবাদ

মন্তব্য