Friday, February 23, 2024
বাড়িআরওঅ্যানিমেশন ফিল্ম মুজিব আমার পিতা

অ্যানিমেশন ফিল্ম মুজিব আমার পিতা

মাসুদ পথিক

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শৈশব-কৈশোর ও তার জীবনের নীতি-আদর্শকে কেন্দ্র করে নির্মিত দেশের প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য অ্যানিমেশন চলচ্চিত্র ‘মুজিব আমার পিতা’ মুক্তি পেয়েছে ১ অক্টোবর। এর আগে ২৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন উপলক্ষে রাজধানীর বসুন্ধরা সিটির স্টার সিনেপ্লেক্সে হয় প্রিমিয়ার।
প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনার লেখা বই ‘শেখ মুজিব আমার পিতা’ অবলম্বনে তৈরি করা হয়েছে পূর্ণদৈর্ঘ্য দ্বিমাত্রিক (টু-ডি) অ্যানিমেশন চলচ্চিত্রটি। চলচ্চিত্রটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান প্রোলেন্সার স্টুডিওর পক্ষ থেকে বলা হয়েছেÑ গত বছর ১৬ সেপ্টেম্বর চলচ্চিত্রটি সেন্সর ছাড়পত্র পেয়ে ঢাকাসহ সারাদেশের বিভিন্ন সিনেপ্লেক্সে ও সিনেমা হলে মুক্তি পায়।
অ্যানিমেটেড চলচ্চিত্রটি তৈরি করতে প্রায় দু-বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের সাবেক এবং বর্তমান শিক্ষার্থীদের একটি দল কাজ করেছে। ১০০ জনেরও বেশি শিল্পী চলচ্চিত্রটি নির্মাণে অবদান রেখেছেন। ব্যাপক গবেষণা এবং চিত্রনাট্য তৈরির পর গত বছরের জানুয়ারিতে এর প্রযোজনার কাজ শুরু হয়।
গত ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ চলচ্চিত্রটির টেকনিক্যাল শো শেষে সংবাদ সম্মেলনে যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি বলেন, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে এটি সারাদেশে প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা হবে। নতুন প্রজন্মের শিশু-কিশোরদের কাছে বঙ্গবন্ধুর জীবনের গল্প পৌঁছে দেওয়া আমাদের দায়িত্ব। আমার মনে হয়, ওদের জানানোর জন্য অ্যানিমেশনের চেয়ে ভালো মাধ্যম আর হতে পারে না। একইভাবে বঙ্গবন্ধুর ছেলেবেলা সম্পর্কে তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চেয়ে ভালো আর কেউ বলতে পারবে না। এ দুইয়ের যুগলবন্দি করা হয়েছে চলচ্চিত্রটিতে। ‘বঙ্গবন্ধু-কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা তার দৃষ্টিতে তার পিতাকে কীভাবে দেখেছেন, সেটি নিয়েই তিনি বইটি লিখেছেন এবং সেটির ওপর ভিত্তি করে ছবিটি নির্মাণ করা হয়েছে। আশা করি, এটি জাতির সবাইকে অনুপ্রাণিত করবে।’ আইটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এ-কথা বলেন, অ্যানিমেশন ফিল্ম ‘মুজিব আমার পিতা’র প্রিমিয়ার শোতে।
সরকারের আইসিটি মন্ত্রণালয়ের ‘গেম অ্যান্ড অ্যাপ’ প্রজেক্টের আওতায় বিএমআইটি সল্যুয়েশনের সহযোগিতায় প্রোল্যান্সার স্টুডিওতে ৪০ জনেরও বেশি চারুশিল্পী নিরলসভাবে কাজ করে ‘মুজিব আমার পিতা’ দ্বিমাত্রিক অ্যানিমেশন ফিল্মটি দর্শকদের কাছে তুলে ধরেছে।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সংগ্রামী জীবন আমাদের রাজনৈতিক চর্চা, সংস্কৃতি ও আদর্শ নির্মাণে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কৈশোরে রাজনীতিতে হাতেখড়ি, যৌবনে স্বাধিকার আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ে শাসক-শ্রেণির চক্ষুশূল হয়ে জেল-জুলুম সহ্য করা, এর মাঝেও দলের প্রতি, দেশের নিপীড়িত মানুষের প্রতি দায়িত্ববোধ ও কর্তব্য পালনের যে তাড়না বঙ্গবন্ধু অনুভব করেছেন এবং বুক চিতিয়ে লড়াই করেছেন, তার কথা আমরা জানতে পারি বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা বিভিন্ন বই ও প্রবন্ধে। অ্যানিমেশন মুভির নির্মাণেও সংশ্লিষ্টরা এক বছরের বেশি সময় ধরে গবেষণা করে ফিল্মটির স্ক্রিপ্ট, স্টোরিবোর্ড, চরিত্র, দৃশ্যপট তৈরি করেন। ১৯২০ থেকে ১৯৫২ সাল পর্যন্ত এ-সময়কাল তুলে ধরতে আশ্রয় নেওয়া হয়েছে তখনকার মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি, বঙ্গবন্ধুর জীবন নিয়ে লেখা বিভিন্ন বই ও প্রবন্ধে। এ ফিল্মটি মূলত বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনার লেখা ‘শেখ মুজিব আমার পিতা’ বইটির ওপর ভিত্তি করে নির্মিত হয়েছে।
বঙ্গবন্ধুর লেখা ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ বইটি থেকেও কিছু তথ্য অবলম্বন করছেন নির্মাতা। দৃশ্যপট তৈরি, নকশা ইত্যাদি তৈরি হচ্ছে ট্রেডিশনাল প্রক্রিয়ায়। ‘মুজিব আমার পিতা’ অ্যানিমেশন ফিল্মটি বঙ্গবন্ধুকে ও তৎকালীন পরিবেশ-পরিস্থিতি জানার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।
এ-বিষয়ে পরিচালক সোহেল মোহাম্মদ রানা জানান, ‘মুজিব আমার পিতা’ অ্যানিমেশন ফিল্মটি তৈরিতে নির্ভুল গবেষণা অত্যন্ত প্রয়োজন ছিল। সঠিক ইতিহাস তুলে ধরতে আমরা যাচাই-বাছাই করেছি তথ্যের।
নরমালি অ্যানিমেশন ফিল্মে নির্মাতারা অনেক ক্ষেত্রে নিজেদের কল্পনা বা আইডিয়াকে স্থান দেন। ইতিহাসভিত্তিক নির্মাণে সে-সুযোগটা থাকে না। এখানেই আমাদের মূল চ্যালেঞ্জ ছিল। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমরা আমাদের মূল উৎস ‘শেখ মুজিব আমার পিতা’ বইটিতে শুধু সীমাবদ্ধ থাকিনি; বরং সেখানে উল্লিখিত ঘটনাবলিকে যাচাই করার জন্য অন্যান্য স্বীকৃত বইয়ের সাহায্যও নিয়েছি।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, মুভির চরিত্র চিত্রায়নের জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, কন্যা শেখ হাসিনা ও অন্যান্য চরিত্রের পুরনো ছবি, পোশাক, বাচনভঙ্গি, চলাফেরা ইত্যাদি নির্ধারণের ক্ষেত্রে পুরনো ভিডিও, তথ্যচিত্র, সাক্ষাৎকারের সাহায্য নেওয়া হয়েছে। নকশা ও প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে বিখ্যাত কিছু অ্যানিমেশন চলচ্চিত্র থেকে অনুপ্রাণিত হলেও ঐতিহাসিক বিবরণ আধুনিক অ্যানিমেশন ফিল্মের গঠন প্রক্রিয়া এই ফিল্মে পাওয়া যাবে বলে আশা করছে সরকারের তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ।
‘মুজিব আমার পিতা’ অ্যানিমেশন মুভির পরিচালনা করছেন সোহেল মোহাম্মদ রানা। লিড ক্যারেক্টার ডিজাইনার আরাফাত করিম, লিড ব্যাকগ্রাউন্ড ডিজাইনার পল্লব কুমার মোহন্ত। চলচ্চিত্রটির চিত্রনাট্য লিখেছেন চিশতী কানন ও ফাহাদ ইবনে কবির।
লেখক : সহ-সম্পাদক, উত্তরণ

আরও পড়ুন
spot_img

জনপ্রিয় সংবাদ

মন্তব্য